আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ গাঁজা আর বিপজ্জনক ড্রাগ নয়। এর সপক্ষে সংখ্যাগরিষ্ঠ ভোট পড়ল রাষ্ট্রপুঞ্জের আন্তর্জাতিক নারকোটিক সম্মেলনের বৈঠকে। এই মর্মে ভোটদান করেছে ভারতও। কিন্তু এর বহুদিন আগে থেকে গাঁজাকে আইনসিদ্ধ করার কথা বলে চলেছেন বহু বিশিষ্ট রাজনীতিক, অভিনেতা থেকে সেলেব। দেখে নেওয়া যাক—
• বার্নি স্যান্ডার্স:‌ মার্কিন প্রেসিডেন্ট হওয়ার দৌড়ে ছিলেন। ভারমন্টের এই প্রাক্তন সেনেটর গাঁজাকে আইনসিদ্ধ করার জন্য বিলও এনেছিলেন। যদিও সমর্থন জোটেনি।
•জাস্টিন ত্রুদো:‌ ২০১৫ সালে ভোট প্রচারের সময়ই প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন, কানাডায় গাঁজা সেবন আইনসিদ্ধ করবেন। ২০১৮ সালে আইন পাশ করিয়ে গাঁজাকে আইনসিদ্ধ করে কানাডা। দুনিয়ায় দ্বিতীয় দেশ। প্রথম ছিল উরুগুয়ে।
• মর্গান ফ্রিম্যান:‌ রুপোলি পর্দায় ভয়েস অফ গড–এ গলা দিয়েছেন। বিখ্যাত এই অভিনেতা গাঁজার হয়ে সওয়াল করেছেন বারবার। এক সাক্ষাৎকারে জানিয়েছিলেন, হাতের ব্যথায় কষ্ট পেতেন একটু স্বস্তি দিত গাঁজা।
• দলাই লামা:‌ তিব্বতি ধর্মগুরু। এমনিতে মদ্যপান, ধূমপান সহ সমস্ত নেশার ঘোরতর বিরোধী তিনি। গাঁজা সেবনও মানতে পারেন না। কিন্তু চিকিৎসার স্বার্থে গাঁজা ব্যবহার হলে তাতে সায় দিয়েছেন। ২০১৩ সালে মেক্সিকোর প্রাক্তন প্রেসিডেন্ট ভিনসেন ফক্সের সঙ্গে কথোপকথনের সময় জানান বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বী নেতা। 
• হিউ হেফনার:‌ ‘‌প্লেবয়’‌ পত্রিকার প্রতিষ্ঠাতা। প্রাক্তন সিইও। নিজে বহু কাল সেবন করেছেন গাঁজা। আমেরিকায় গাঁজা আইনসিদ্ধ করার জন্য বারবার সওয়াল করেছেন। 
• রিহানা:‌ প্রকাশ্যেই গাঁজা সেবন করেন এই পপস্টার। জানিয়েছেন, এক সময় রোজ টানতেন। এখন কমানোর চেষ্টা করছেন। দাবি করেছেন, আমেরিকায় গাঁজার বেআইনি তকমা ঘোচানো হোক। 
• লেডি গাগা:‌ স্পষ্টি দাবি করেন, নিয়মিত গাঁজা টানেন তিনি। কেরিয়ার নিয়ে চাপ সামলাতে এটা তাঁর দরকার হয়। মনেপ্রাণে চান, গোটা আমেরিকায় গাঁজা সেবন আইনসিদ্ধ হোক। 

জনপ্রিয়
আজকাল ব্লগ

Back To Top