আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ বিচারপতিদের ন্যায্য বিচার করাটাই কাজ। সেটা আদালতের এজলাসে হোক বা সরাসরি সমাজের বুকে। এমনই এক ন্যায্য বিচার করে নজির গড়লেন বিহার হাইকোর্টের এক বিচারপতি। গরীব পরিবারের নাবালক ছেলেটি মায়ের চিকিৎসা এবং মুখে খাবার তুলে দেওয়ার জন্য চুরি করেছিল। আর বিচারপতি তাঁকে শাস্তি না দিয়ে সত্য ঘটনা জানতে পেরে তুলে দিলেন রেশন, জামাকাপড় এবং অন্যান্য নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিস। একইসঙ্গে বিচারপতি বুঝিয়ে দিলেন ছেলেটিকে চুরি করাটা খারাপ। 
ঠিক কী ঘটেছিল?‌ পুলিশ সূত্রে খবর, ছেলেটির নাম নরেন্দ্র রাও। বিহারের নালন্দায় সে থাকে। তার মা অসুস্থ। খাবার জোটাতে চুরি করেছিল সে। তাকে ধরে নিয়ে আদালতে হাজির করে পুলিশ। সেখানে নিজের কৃতকর্মের কথা স্বীকার করে ছেলেটি। বিচারপতি তখন তাকে আরও একটা সুযোগ দেওয়ার কথা বলেন। তারপর নির্দেশ দেন, এই ছেলেটিকে রেশন, জামাকাপড় এবং মায়ের জন্য ওষুধ তুলে দিতে। আর নাবালককে ছেড়ে দেওয়া হয়। 
সংবাদসংস্থা এএনআই জানাচ্ছে, ছেলেটি চুরি করে ধরা পড়ার পর আদালতে জানায়, ‘‌চুরি করে পালানোর সময় পুলিশ আমাকে ধরে। স্থানীয়রা আমাকে মারধর করে। তারা আমাকে লাথি মারে। পুলিশ আমাকে জেলে নিয়ে যায়। আপনি আশা করি বুঝবেন কেন আমি চুরি করেছি?‌ আমার মা অসুস্থ। আর আমাদের খাবার কিছু নেই। আমি মাকে খেতে দিতে চুরি করেছিলাম।’‌ 
আদালতের নির্দেশ পেয়ে জেলা প্রশাসন জানিয়েছে, ‘‌তাদের একটি রেশন কার্ড আছে। সরকারি পেনশন প্রকল্পে কিছু টাকা তারা পায়। কিন্তু নিজেদের নামে কোনও বাড়ি নেই। আবাস যোজনা থেকে তারা বঞ্চিত। আমরা কিছু নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিস তাদের দিচ্ছি।’‌ স্থানীয় গ্রামবাসীরা আদালতের রায়কে স্বাগত জানিয়েছেন। আশা করছেন আর ছেলেটি কখনও চুরি করবে না। 

জনপ্রিয়

Back To Top