আজকাল ওয়েবডেস্ক: সালটা ২০১৩। কেন্দ্রে ইউপিএ সরকার। দল আর সরকারের মধ্যে তখন চলছে পর্দার আড়ালে সংঘাত। এই পরিস্থিতিতে‌ দাগী জনপ্রতিনিধিদের রক্ষায় ২০১৩ সালে অর্ডিন্যান্স এনেছিল তৎকালীন ইউপিএ সরকার। সরকারের এই পদক্ষেপের প্রকাশ্যে সমালোচনা করেছিলেন রাহুল গান্ধী। যা নিয়ে বেজায় অস্বস্তিতে পড়ে সরকার। সেই অর্ডিন্যান্সটিকে ‘ননসেন্স’ আখ্যা দিয়েছিলেন রাহুল গান্ধী। 
প্রকাশ্যে সংঘাত চলে আসায় প্রধানমন্ত্রী পদ থেকে ইস্তফা দেওয়ার ইচ্ছাপ্রকাশ করেছিলেন মনমোহন সিং। গোপন এই বিস্ফোরক তথ্য সামনে এনেছেন বর্তমানে বাতিল হয়ে যাওয়া যোজনা কমিশনের প্রাক্তন ডেপুটি চেয়ারম্যান মন্টেক সিং আলুওয়ালিয়া। আর তা নিয়ে এখন জাতীয় রাজনীতিতে জোর চর্চা শুরু হয়েছে। 
জানা গিয়েছে, রাহুল গান্ধী সেইসময় সাংবাদিক বৈঠকে বিতর্কিত অর্ডিন্যান্স নিয়ে গলা ফাটিয়েছিলেন তখন মার্কিন সফরে ছিলেন মনমোহন সিং। দলীয় সূত্রে জানা গিয়েছিল, মনমোহন সিং সম্পর্কে রাহুল গান্ধী নাকি হতাশ এবং বিরক্ত। তাই প্রধানমন্ত্রী পদ থেকে মনমোহনের ইস্তফা দেওয়ার সম্ভাবনা নিয়ে জল্পনা চলছিল। মনমোহনের অন্যতম ঘনিষ্ঠ হিসেবে পরিচিত মন্টেক জানান, রাহুলের সেদিনের ঝাঁঝাল আক্রমণ ব্যথিত করেছিল স্বল্পভাষী মনমোহনকে। এই পরিস্থিতিতে তাঁর পদত্যাগ করা উচিত কি না, আমেরিকায় থাকাকালীনই মন্টেকের কাছে প্রশ্ন করেছিলেন মনমোহন।
এই ঘটনার পরে প্রধানমন্ত্রিত্ব সামলালেও বিভিন্ন ইস্যুতে মনমোহনকে আর সেভাবে সক্রিয় হতে দেখা যায়নি। যদিও এমন কোনও সিদ্ধান্ত তাঁর নেওয়া উচিত নয় বলে সাফ জানিয়ে দিয়েছিলেন মন্টেক। এমনকী যাঁরা আগে অর্ডিন্যান্স সমর্থন করেছিলেন এবং প্রকাশ্যে অর্ডিন্যান্সের পক্ষে সওয়াল করেছিলেন তাঁদের পদ পরিবর্তন হয়ে গিয়েছিল। সেটাও হয়েছিল রাহুল গান্ধীর অঙ্গুলিহেলনেই বলে দাবি মন্টেক সিং আলুওয়ালিয়া। কংগ্রেসের অন্দরের এই বিষয়টি তিনি তুলে ধরেছেন তাঁর নতুন বইয়ে। যার নাম—‘‌ব্যাকস্টেজ: দ্য স্টোরি বিহাইন্ড ইন্ডিয়াস হাই গ্রোথ ইয়ারস’‌। 

জনপ্রিয়

Back To Top