আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ ফের ধর্মগুরুর ডেরায় মহিলা পাচারের অভিযোগ। এবার মহিলা পাচারের ডেরা উদ্ধার হল খোদ সল্টলেকে। সল্টলেকের সিএল ব্লকের একটি বাড়ি থেকে ১১ জন মহিলা এবং একজন পুরুষকে উদ্ধার করল পুলিস। অভিযোগ, এখানেই তৈরি হয়েছিল একটি ধর্মগুরুর আশ্রম। আর সেখান থেকেই চলত বেআইনি কার্যকলাপ। পুলিসের জিজ্ঞাসাবাদের সামনে বাড়ির মালিক রবীন্দ্রনাথ দাসের অভিযোগ, তাঁর ভাড়াটে, স্বঘোষিত ধর্মগুরু বীরেন্দ্রদেব দীক্ষিত নিজেকে শিবের অবতার বলতেন। দাবি করতেন, তাঁকে জন্মমৃত্যু ছুঁতে পারে না। আর সেই গজিয়ে ওঠা ধর্মগুরুর ঘরেই মাঝে মাঝে যাতায়াত করতেন সুন্দরী মহিলা থেকে নাবালিকা, সকলেই। এসব কর্মকাণ্ড দেখেই স্থানীয় বাসিন্দারাও বহুবার অভিযোগ করেন, বীরেন্দ্রদেব প্রতিষ্ঠিত সল্টলেকে আধ্যাত্মিক ঈশ্বরীয় বিশ্ববিদ্যালয়ে আধ্যাত্মিকতার নামে মহিলাদের জোর করে আটকে রেখে যৌন নির্যাতন করা হয়।

অভিযোগ পেয়ে  শনিবার বিধাননগর পূর্ব থানা এবং গোয়েন্দা বিভাগ সিএল ব্লকের ২৪৯ নম্বরের বাড়িতে অভিযান চালিয়ে ওই ১২ জন মহিলাকে উদ্ধার করে। বাড়ি থেকে উদ্ধার হয়েছে বেশ কিছু নথি, কম্পিউটার, হার্ড ডিস্ক ছাড়াও বিভিন্ন জিনিসপত্র। বাড়িটি সিল করে দিয়েছে পুলিস। প্রাথমিক তদন্তে পুলিস জেনেছে, বীরেন্দ্রদেবের নামে কয়েকদিন আগে ধর্ষণের অভিযোগে মামলা হয়েছিল দিল্লি হাইকোর্টে। এছাড়া, বছর খানেক আগেও স্থানীয় বাসিন্দাদের অভিযোগের ভিত্তিতে তল্লাশি চালিয়েছিল পুলিস। সেবারে নিস্তার পেয়েছিলেন ওই স্বঘোষিত ধর্মগুরু। এইদিন ওই আশ্রম থেকে গ্রেপ্তার হওয়া ১১ জন মহিলাকে জেরা করতে শুরু করেছে পূর্ব বিধাননগর থানার পুলিস। আশা করা হচ্ছে, জিজ্ঞাসাবাদের ফলে উঠে আসতে পারে অনেক নতুন তথ্য।  ‌

জনপ্রিয়

Back To Top