দীপঙ্কর নন্দী, এডিনবরা: লন্ডন ছেড়ে মঙ্গলবার বিকেল ৪টে ২০ নাগাদ স্কটল্যান্ডের ‌‌এডিনবরায় এসে পৌঁছলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি। লন্ডন থেকে এডিনবরায় যাওয়ার উদ্দেশ্যই হল বিনিয়োগ টানা। ১৬ নভেম্বর এডিনবরায় দু’‌দেশের শিল্পপতিদের নিয়ে একটি বড় সম্মেলন হবে। প্রধান বক্তা মুখ্যমন্ত্রী। সোমবার লন্ডনে শিল্পপতিদের সঙ্গে মমতা বৈঠক করেন। বাংলায় বিনিয়োগ করার জন্য তাঁদের কাছে আহ্বান জানান। তার পর তিনি যান বিশিষ্ট শিল্পপতি লক্ষ্মী মিত্তলের বাড়িতে। সেখানে বাংলায় শিল্পের সম্ভাবনা নিয়ে আলোচনা হয়। মমতা লক্ষ্মী মিত্তলকে জানুয়ারি মাসে বিশ্ব বঙ্গ বাণিজ্য সম্মেলনে আসার আমন্ত্রণ জানান। মমতা সাংবাদিকদের জানিয়েছেন, তিনি আসবেন। কথা দিয়েছেন। মমতাকে লক্ষ্মী মিত্তল তাঁর বাড়িতে আসার জন্য আগেই আমন্ত্রণ জানিয়েছিলেন। বাড়ির বাইরে থেকে মমতাকে তিনি নিজে নিয়ে যান। মমতা যখন আলোচনা করে ফিরে আসছেন, তখন মিত্তল তাঁকে অনেকটাই এগিয়ে দেন। প্রথমেই সৌজন্য বিনিময় করেন, তার পর আলোচনা। লন্ডনের নামকরা শিল্পপতিদের মধ্যে লক্ষ্মী মিত্তল অন্যতম। কলকাতার এই মানুষটি দীর্ঘ পথ অতিক্রম করে শিল্পের সর্বোচ্চ শিখরে পৌঁছেছেন। লন্ডনের কাছে বাংলাকে মেলে ধরে স্কটল্যান্ডের মানুষের কাছেও ঠিক একই ভাবে বাংলাকে তুলে ধরতে চান মমতা। অসাধারণ তাঁর দূরদৃষ্টি। অর্থ ও শিল্পমন্ত্রী অমিত মিত্র বলেন, আমাদের মুখ্যমন্ত্রীর এই অক্লান্ত পরিশ্রম বিফলে যাবে না। গোটা বিশ্বের কাছে তিনি বাংলাকে আরও পরিচিত করাতে চান। আমরা তাঁর পাশে আছি, থাকবও। তিনি যত এগিয়ে যাবেন তত বাংলাকে আমরা বিশ্বের মানুষের কাছে তুলে ধরতে পারব। বিশিষ্ট শিল্পপতি পূর্ণেন্দু চ্যাটার্জি লন্ডনের সেন্ট জেমস কোর্টে শিল্পপতিদের সম্মেলনে বলেন, আমি হোটেলে নিজের ঘরে গিয়ে দেখতে পাই একটা ছোট্ট ব্যাগ। ব্যাগ খুলে দেখি তাতে রয়েছে একটি সুন্দর সোয়েটার। আমি অভিভূত। আমি মুগ্ধ। আমি মনে করি, এই মুখ্যমন্ত্রীর পক্ষেই এই কাজ করা সম্ভব। তিনি তাঁর অনুভূতিকে কোন পর্যায়ে নিয়ে গেছেন, লন্ডনের এই ঠান্ডায় সোয়েটার হাতে পেয়ে আরেকবার অনুভব করলাম। এটা আমি কোনও দিন ভুলতে পারব না। আমার স্মৃতিতে উজ্জ্বল হয়ে থাকবে। মুখ্যমন্ত্রীকে নমস্কার। অনেকদিন ধরে বাংলায় রয়েছি। আরও কাজ করতে চাই। মুখ্যমন্ত্রীর জন্য যদি আরও কিছু কাজ করে যেতে পারি তাহলে নিজেকে ধন্য মনে করব। প্রায় সাড়ে ৪ ঘণ্টা ট্রেন জার্নি করে এডিনবরায় এসে পৌঁছন মমতা। লন্ডনের সেন্ট জেমস কোর্টের হোটেল থেকে কিংক্রস স্টেশন পর্যন্ত মমতা হেঁটে আসেন। আধ ঘণ্টা সময় লাগে। স্টেশন ম্যানেজার মমতার পরিচয় পেয়ে তাঁকে অভিনন্দন জানান। তাঁর সঙ্গে ছবিও তোলেন। মমতার সঙ্গে রয়েছেন অর্থমন্ত্রী অমিত মিত্র, শিল্পপতি হর্ষ নেওটিয়া, তরুণ ঝুনঝুনওয়ালা, সত্যম রায়চৌধুরী, মায়াঙ্ক জালান প্রমুখ। লন্ডনে না থাকলেও এডিনবরায় পৌঁছেছেন সঞ্জীব গোয়েঙ্কা ও সঞ্জয় বুধিয়া। লন্ডনে থেকেও মমতা ক্রমাগত কলকাতার সঙ্গে যোগাযোগ রেখেছেন। তাঁর সঙ্গে রয়েছেন মুখ্য সচিব মলয় দে, এডিজি (‌আইন–‌শৃঙ্খলা)‌ অনুজ শর্মা। ১৭ নভেম্বর এডিনবরা থেকে গ্লাসগো, দুবাই হয়ে ১৮ নভেম্বর কলকাতায় পৌঁছবেন তিনি। ট্রেনের ভিতরে বসে জানলার কাচ দিয়ে গ্রাম, শহর দেখে মমতা মুগ্ধ। হাইস্পিডের এই ট্রেন সব স্টেশনে থামে না। বাঁদিকে, ডানদিকে দুটি করে আসন। মাঝখানে সরু প্যাসেজ। বিমানসেবিকারা যেভাবে ট্রলিতে খাবার, পানীয় নিয়ে যাতায়াত করেন, একই ছবি লন্ডনের এই ট্রেনে। টিকিট পরীক্ষক ঘুরে বেড়াচ্ছেন। কারও থেকে টিকিট চাইতে হচ্ছে না। যাত্রীরা নিজেরাই টিকিট দেখিয়ে দিচ্ছেন। ভারতবর্ষের ট্রেনের মতো একবারও পরীক্ষকের মুখে শোনা গেল না, ‘‌দেখি আপনার টিকিটটা’‌। টিকিট পরীক্ষকের কাছে জানতে চাইলাম, বিনা টিকিটে কেউ যান কি না। আমরা জানি এ কাজ কেউ করবেন না। রেললাইনের দু’‌ধারে ‘‌উইন্ডমিল’‌, ছবির মতো শহর ও গ্রাম। কোথাও বিস্তীর্ণ সবুজ মাঠ, কোথাও খেত। লন্ডন থেকে স্কটল্যান্ডে আরও বেশি ঠান্ডা পড়ে। লন্ডনের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ৭ ডিগ্রি। 
 

বঙ্গ সংস্কৃতি অস্ট্রেলিয়া

বুধবার ৮ নভেম্বর, ২০১৭

চন্দননগরের জগদ্ধাত্রী পুজা

শুক্রবার ২৭ অক্টোবর, ২০১৭

রাত পোহালেই কোজাগরি লক্ষীপুজো

বুধবার ৪ অক্টোবর, ২০১৭

সিঁদুর খেলায় তারকা সমাবেশ

মঙ্গলবার ৩ অক্টোবর, ২০১৭

কলকাতা পুজো কার্নিভাল

মঙ্গলবার ৩ অক্টোবর, ২০১৭

গণেশ বন্দনায় মেতেছে বলিউড

বৃহস্পতিবার ২৪ আগষ্ট, ২০১৭

ফুলে ঢাকা চিলির মরুভূমি

বুধবার ২৩ আগষ্ট, ২০১৭

পুতিনের মেমেতে ছয়লাপ রাশিয়া

রবিবার ৬ আগষ্ট, ২০১৭

শহীদ অমিতাভকে শেষ শ্রদ্ধা

শনিবার ১৪ অক্টোবর, ২০১৭

সারমেয় সজ্জা

সোমবার ৩১ জুলাই, ২০১৭

Back To Top