দীপঙ্কর নন্দী: রাষ্ট্রপতি নির্বাচনের দিন বিধানসভায় পার্থ চ্যাটার্জির ঘরে মিডিয়ার লোকজনদের সামনে কড়া ভাষায় সরাসরি বিজেপি–‌কে আক্রমণ করলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি। বিধানসভার অধিবেশন কক্ষে তখনও ভোট চলছে। মিডিয়ার সামনে আগুন ঝরানো বক্তব্য মুখ্যমন্ত্রীর। তিনি বিজেপি–‌কে সরাসরি প্রশ্ন করেন, সীমান্ত খুলে দিচ্ছে কারা?‌ র, বিএসএফ, এজেন্সিরা কী করছে?‌ কেন সাতক্ষীরা দিয়ে জামাত–‌ই–‌ইসলামের লোকজনদের দাঙ্গা করানোর জন্য বাংলায় ঢোকানো হচ্ছে। ক্ষুব্ধ মমতা বলেন, আমাদের কাছে নির্দিষ্ট খবর আছে যে, নেপাল সীমান্তে পশুপতিতে ৪০০ স্কুল খোলা হয়েছে। যেখানে চীনা ভাষা পড়ানো হচ্ছে। বিদেশ দপ্তর কী করছে?‌ আজ যদি নেপাল চীনের মধ্যে চলে যায়, তখন কী হবে?‌ শিলিগুড়ি, দার্জিলিঙে বিদেশি মদত দেওয়া হচ্ছে। এভাবে বিজেপি দাঙ্গা লাগানোর রাজনীতি শুরু করেছে। ওরা নাকি রাজ্য সামলাবে!‌ আগে যে সব হনুমান ল্যাজে আগুন লাগিয়ে দাঙ্গা বাধানোর চেষ্টা করছে, তাদের সামলাক। মমতার বক্তব্য, প্রতিবাদ করলেই গ্রেপ্তারের হুমকি দেওয়া হচ্ছে। আমরা হুমকিতে ভয় পাই না। বাঘের বাচ্চার মতো বেঁচে থাকব। আমাদের যদি জেলে ঢোকানো হয়, তা হলে খুশিই হব। তা সত্ত্বেও ওদের কাছে মাথা নোয়াব না। এদিন মমতা বিধানসভায় আসেন দুপুর ১টা নাগাদ। ভোট শুরু হয় ১০টা থেকে। বিধানসভায় এসেই নিজের ঘরে কিছুক্ষণ থেকে ভোট দেন। পরে সাংসদদের সঙ্গে আলাদাভাবে কথা বলেন। বিধায়কদের মধ্যেও অনেকেই তাঁর সঙ্গে দেখা করেন। সাংবাদিকদের মমতা বলেন, যুক্তরাষ্ট্রীয় কাঠামো বিজেপি ভেঙে দিতে চাইছে। ভারতকে ছিন্নভিন্ন করার পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে। সুপার এমার্জেন্সি। প্রত্যেকের কণ্ঠরোধ করে দেওয়া হচ্ছে। আধার কার্ড, জিএসটি ও নোটবন্দী নিয়ে গোটা ভারত জুড়ে দুর্ভোগ চলছে। আজও সকালে কিছু মিষ্টির দোকানের মালিক আমার কাছে এসে জিএসটি নিয়ে অভিযোগ জানিয়ে গেছেন। মমতা সরাসরি বিজেপি–‌র দিকে আঙুল তুলে বলেন, অর্থনীতিকে এরা ধ্বংস করে দিচ্ছে। এর বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করার সময় এসেছে। ১৭টি বিরোধী দলের প্রার্থী হয়েছেন লোকসভার প্রাক্তন স্পিকার মীরা কুমার। মমতার বক্তব্য, বাংলা থেকে মীরা কুমার সবচেয়ে বেশি ভোট পাবেন। আমি জানি, আমরা হারব। তা সত্ত্বেও অন্যায় ও অত্যাচারের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানাতে আমরা প্রার্থী দিয়েছি। আমরা প্রতিবাদ রেকর্ড করাতে পেরেছি। বিজেপি প্রার্থী ভোটে জিতলে তাঁর প্রতি আমাদের শ্রদ্ধা থাকবে। বিজেপি সংখ্যার জোরে যা খুশি করে চলেছে। এখনও যাঁরা বিজেপি–‌র ভয়ে জুজু হয়ে আছেন, তাঁরা সঙ্ঘবদ্ধ হোন। জোট বাঁধুন। রাষ্ট্রপতি নির্বাচনের দিনটিকে আমি শুভদিন বলে মনে করি। আসুন, সকলে মিলে একসঙ্গে বিজেপি–‌র বিরুদ্ধে যাত্রা শুরু করি। যে কটি দল এখনও বিজেপি–‌কে মদত দিয়ে চলেছে, তারা আমাদের পাশে এসে দাঁড়াক। বিজেপি চাইছে, বাংলাদেশের সঙ্গে আমাদের সম্পর্ক খারাপ হোক। বাংলাদেশকে আমরা ভালবাসি। বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী হাসিনার কুশপুতুল জামাত–‌এর লোকেরা যখন পোড়াল, তখন বিদেশমন্ত্রীকে চিঠি লিখে আমি প্রতিবাদ জানিয়েছি। আমি মনে করি, এর পেছনেও অন্য শক্তির মদত রয়েছে। বিজেপি–‌কে সরাসরি দোষারোপ করে মমতা বলেন, সরকারি কাজে এরা হস্তক্ষেপ করছে। গো–‌রক্ষার নামে গো–‌হিংসা চলছে। দু’‌একটি গরু এনে দাঙ্গা লাগানোর চেষ্টা চলছে। ওরা যদি ভেবে থাকে, বাংলায় সহজ মাটি, তা হলে কিন্তু ভুল ভাববে। আমরা শেষ দেখে ছাড়ব। মানুষের পাশে আছি, মানুষের পাশে থাকব। নেপাল, দার্জিলিংকে মদত দেওয়া হচ্ছে। বাংলাকে স্যান্ডউইচ করে দেওয়া হচ্ছে। আমরা জানি, নর্থ ইস্ট গেটওয়ে অফ বেঙ্গল এখানেই গোলমাল লাগানো হচ্ছে। মমতা বিজেপি–‌র কাছে জানতে চান, কেন্দ্রের অফিসারদের বাড়িতে এত টাকা থাকে কীভাবে?‌ কোথা থেকে আসছে এই টাকা। বাড়ি ভর্তি কালো টাকা। বিজেপি–‌র কত টাকা আছে?‌ নোটবন্দীর সময় কত কালো টাকা সাদা হয়েছে। কিছু হয়নি। মানুষকে ধোঁকা দেওয়া হয়েছে। আজও সাধারণ মানুষ দুর্দশার মধ্যে দিন কাটাচ্ছে। মমতা এদিন সাংসদদের বলেন, লোকসভায় বাদল অধিবেশন শুরু হয়েছে। এই অধিবেশনকে আমাদের কাজে লাগাতে হবে। আধার কার্ড, জিএসটি, নোটবন্দী নিয়ে প্রতিবাদ করতে হবে। গরিব মানুষের অসহায় অবস্থা তুলে ধরতে হবে। দলের বিধায়কদর বিজেপি–‌র বিরুদ্ধে আন্দোলন করার নির্দেশ দেন। সাংবাদিকদের তিনি বলেন, বিজেপি–‌র আমলে দেশ ক্রমশই পিছিয়ে যাচ্ছে। আমরা এভাবে কোনওদিন পিছিয়ে যাইনি। তাই বিজেপি–‌র বিরুদ্ধে জোট বাঁধার সময় এসেছে। বিজেপি–‌কে আক্রমণ করে মমতা বলেন, এই বাংলাকে ভাগ করতে দেব না। ওদের বন্দুক চালাতে দেব না। 

 

সাংবাদিকদের মুখোমুখি মুখ্যমন্ত্রী। পাশে পার্থ চ্যাটার্জি, ডেরেক ও ব্রায়েন, সৌগত রায়, সুদীপ ব্যানার্জি ও কল্যাণ ব্যানার্জি। বিধানসভায়। ছবি: অভিজিৎ মণ্ডল

বঙ্গ সংস্কৃতি অস্ট্রেলিয়া

বুধবার ৮ নভেম্বর, ২০১৭

চন্দননগরের জগদ্ধাত্রী পুজা

শুক্রবার ২৭ অক্টোবর, ২০১৭

রাত পোহালেই কোজাগরি লক্ষীপুজো

বুধবার ৪ অক্টোবর, ২০১৭

সিঁদুর খেলায় তারকা সমাবেশ

মঙ্গলবার ৩ অক্টোবর, ২০১৭

কলকাতা পুজো কার্নিভাল

মঙ্গলবার ৩ অক্টোবর, ২০১৭

গণেশ বন্দনায় মেতেছে বলিউড

বৃহস্পতিবার ২৪ আগষ্ট, ২০১৭

ফুলে ঢাকা চিলির মরুভূমি

বুধবার ২৩ আগষ্ট, ২০১৭

পুতিনের মেমেতে ছয়লাপ রাশিয়া

রবিবার ৬ আগষ্ট, ২০১৭

স্মৃতিতে প্রিয়রঞ্জন

বুধবার ২২ নভেম্বর, ২০১৭

শহীদ অমিতাভকে শেষ শ্রদ্ধা

শনিবার ১৪ অক্টোবর, ২০১৭

সারমেয় সজ্জা

সোমবার ৩১ জুলাই, ২০১৭

Back To Top