দার্জিলিং, সঞ্জয় বিশ্বাস: দু দিন হয়ে গেল পাহাড়ে পৌঁছচ্ছে না সংবাদপত্র। বন্ধ রয়েছে মাদার ডেয়ারির দুধ। সম্প্রতি সংবাদপত্রের একটি গাড়ি পোড়ানো হয় সেখানে। তার পর থেকেই সংশয় দেখা দিয়েছিল, সংবাদপত্র পাহাড়ে যাওয়া বন্ধ হতে পারে। সেই আশঙ্কাকেই সত্যি করে ঢুকছে না সংবাদপত্রের গাড়ি। আতঙ্কে সেখানে যেতে চাইছেন না কেউই। অন্যদিকে, গতকাল রাতে অশান্তি ছড়ানোর অভিযোগে এক ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করা হয় কার্শিয়াং থেকে। বেশ কিছুদিন ধরেই দেখা পাওয়া যাচ্ছে না বিমল গুরুং ও বিনয় তামাং–‌এর। সংবাদপত্র না পৌঁছনোয়, পাহাড়ের বাইরের কোনও খবরই পাচ্ছেন না সেখানকার বাসিন্দারা। মূল স্রোত থেকে আরও বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ছেন তঁারা। কয়েকদিন আগেই সংবাদপত্রের একটি গাড়ির সঙ্গে চালবোঝাই ট্রাকেও আগুন ধরিয়ে দেওয়া হয়। ট্রাকটি শিলিগুড়ি থেকে সিকিমের দিকে যাচ্ছিল। টানা বৃষ্টি ফের শুরু হয়েছে পাহাড়ে। খাদ্যের অভাব বিভিন্ন জায়গায় তীব্রতর হচ্ছে। এদিকে, দার্জিলিং, কালিম্পং, কার্শিয়াং ও মিরিকে অনশনকারীদের শারীরিক অবস্থার ক্রমশ অবনতি হচ্ছে। পাহাড়ে টানা আন্দোলনের জেরে এক–‌এক করে বন্ধ হয়ে গেছে ৮টি বিদ্যুৎ উৎপাদন কেন্দ্র। আতঙ্কে সমতলে নেমে এসেছেন অনেক কর্মী। বিদ্যুৎমন্ত্রী শোভনদেব চ্যাটার্জি সম্প্রতি জানিয়েছেন, পাহাড়ে বিদ্যুতের কোনও ঘাটতি হবে না। তবে, বিদ্যুৎ দপ্তরের কর্মীরা বলছেন, আন্দোলন এভাবে চলতে থাকলে আগামী দিনে সমস্যায় পড়তে হবে। তাছাড়া, এই আন্দোলনের জেরে প্রচুর রাজস্বের ক্ষতি হচ্ছে। জমা পড়ছে না বিদ্যুৎ বিল। পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য বিদ্যুৎ পর্ষদ এমপ্লয়িজ অ্যান্ড ওয়ার্কার্স ইউনিয়নের রাজ্য সাধারণ সম্পাদক বলাই দাস জানিয়েছেন, দু ‌মাসে পাহাড়ে দুই জেলা মিলিয়ে ৭ কোটি টাকার বিল বকেয়া পড়ে আছে। বিদ্যুৎ উৎপাদন কেন্দ্রগুলিরও ক্ষতি হচ্ছে।‌

Back To Top