আজকালের প্রতিবেদন:‌ বর্ষারেখার প্রভাবে কলকাতায় হালকা বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে। সকাল থেকে মেঘলা আকাশ মাঝে মাঝেই দেখা গেছে। রোদ উঠলেও, গরমের তীব্রতা নেই। ঝাড়খণ্ডে যদিও আজও বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে। এই বৃষ্টির জেরে ডিভিসিতে জল বাড়ছে। এই জল উদয়নারায়নপুরে বেশ কয়েকটি জায়গায় ঢুকেছে সকালে। আবহাওয়া দপ্তর সূত্রে জানা যাচ্ছে, বর্ষা বিদায়ের সময় মাঝে মাঝেই হালকা থেকে মাঝারি বৃষ্টিপাত রাজ্যে দেখা যায়। তবে ভারী বৃষ্টি হয় না। যদি না কোনও নিম্নচাপ বা ঘূর্ণাবর্ত তৈরি হয়। আবহবিদরা জানাচ্ছেন, বঙ্গোপসাগরের দক্ষিণ–‌পূর্ব অংশে একটি ঘূর্ণাবর্ত তৈরি হয়েছে। তবে তার প্রভাব এখনই রাজ্যে পড়ার সম্ভাবনা নেই। জানা যাচ্ছে, ডিভিসির ছাড়া জলে আজ সকাল থেকেই উদয়নারায়ণপুরের মনসুখা, ঘোলা, শিবানীপুর, দিয়াড়াপুরের বেশ কয়েকটি ধানজমি জলমগ্ন হয়ে পড়েছে। আরও একবার চাষের ক্ষয়ক্ষতির আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। যদিও জনবসতিপূর্ণ এলাকায় এখনও জল ঢোকেনি। তবে প্রশাসনের তরফে সতর্কতা জারি করা হচ্ছে। শুরু হয়েছে মাইকে করে প্রচার। আজ সকালেই সেচ দপ্তরের কর্মীরা দামোদরের বাঁধে নজরদারি শুরু করেছেন। যে সমস্ত জায়গায় দুর্বলতা আছে, সেই জায়গাগুলির দিকে নজর রাখা হচ্ছে। প্লাবনের আশঙ্কায় আতঙ্কিত এলাকাবাসীরা। বর্ষাকালে প্রবল বৃষ্টিতে ডিভিসির ছাড়া জলে প্লাবিত হয়েছিল উদয়নারায়ণপুর। দীর্ঘদিন ঘরছাড়া ছিলেন এলাকবাসীরা। ক্ষয়ক্ষতি হয়েছিল প্রচুর। অসুস্থ হয়ে পড়েছিলেন অনেকেই। অনেকদিন লেগেছিল স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরতে। সেই আতঙ্ক ফের ফিরছে ডিভিসি জল ছাড়ায়। তবে ঘূর্ণাবর্তের কারণে টানা বৃষ্টি বেশিদিন চলে না। ঝাড়খণ্ডের ওপরে এখনও ঘূর্ণাবর্তটি থাকলেও বৃষ্টি কমেছে। 
গতকাল থেকেই বাঁকুড়ায় পরিষ্কার আকাশ দেখা গেছে। তিলজলা, মাইথন থেকে ছাড়া জলের পরিমাণ কমানো হয়েছে।

জনপ্রিয়

Back To Top