দীপঙ্কর নন্দী: পার্টির মিটিং করছেন দরজা বন্ধ করে। লোকজনদের মারার পরামর্শ দিচ্ছেন কর্মীদের। তিনবার কেন, তিনশো বার বাংলায় এসে কোনও পরিবর্তন করতে পারবেন না তিনি। মঙ্গলবার তৃণমূল ভবনে বসে দলের মহাসচিব পার্থ চ্যাটার্জি এভাবেই আক্রমণ করলেন বিজেপি–‌র সর্বভারতীয় সভাপতি অমিত শাহকে। পার্থ বলেন, আর যাই হোক, অমিত শাহ অর্থমন্ত্রী নন। তিনি পার্টির প্রেসিডেন্ট। তিনি বাংলার হিসেব চাইবার কে?‌ সিন্ডিকেট দেখাবেন না। আগে উত্তর দিন, কেন্দ্র কেন বিভিন্ন প্রকল্পের টাকা দেওয়া বন্ধ করেছে?‌ বন্ধ দরজার ভেতর থেকে সমাজকে ভাগ করার পরামর্শ দিচ্ছেন বিজেপি–‌র সর্বভারতীয় সভাপতি। এর বিরুদ্ধে আমাদের রুখে দাঁড়াতে হবে। পার্থ বলেন, বিজেপি–‌র নেতারা এখানে এসে নানা মন্তব্য করে যাচ্ছেন। মমতার উন্নয়নের রথ তাঁরা স্তব্ধ করে দিতে চাইছেন। অমিত শাহকে প্রশ্ন করে পার্থ বলেন, আপনারা কি বাংলার সংস্কৃতি জানেন?‌ যদি জানতেন, তা হলে মমতা ব্যানার্জি সম্পর্কে এ ধরনের মন্তব্য করতেন না। এঁরা গদি দখলের চেষ্টা করছেন। মমতার পাশে মানুষ রয়েছেন। তাঁরাই বিজেপি–‌কে প্রতিহত করবেন। বিজেপি–‌র জন্যই রাজ্য কিছুটা তো পিছিয়ে পড়ছে। পার্থর অভিযোগ, শুরু থেকেই বিজেপি প্রতিহিংসার রাজনীতি করছে। সাংসদ, মন্ত্রী ও নেতাদের এজেন্সি দিয়ে ভয় দেখানো হচ্ছে। ধমকানো, চমকানো হচ্ছে। এর বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তুলতে হবে। বিজেপি নেতাদের কাছে পার্থর প্রশ্ন, বাংলার ভালর জন্য এখানে এ পর্যন্ত আপনারা ক’‌টা মিটিং, মিছিল করেছেন?‌ কেন্দ্রের বিমাতৃসুলভ আচরণের বিরুদ্ধে দিল্লিতে গিয়ে কতবার দরবার করেছেন?‌ পার্থ বলেন, প্রতিবার নির্বাচনের সময় বিজেপি কুৎসা ও অপপ্রচার শুরু করে। আমরা বিজেপি–‌র হুমকিকে ভয় পাই না। আমরা ভয় পাই মানুষকে। বিজেপি–‌র নেতারা সিপিএমের অত্যাচার বাংলায় দেখেনি। সিপিএমের বিরুদ্ধে মমতাকে লড়াই করতে হয়েছে। এখনও তিনি লড়াই করছেন। তিনি সংগ্রামের মধ্য দিয়েই উঠে এসেছেন। নোট বাতিল থেকে শুরু করে জিএসটি–‌সহ প্রতিটি জনবিরোধী নীতির বিরুদ্ধে মমতা মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছেন। বিজেপি–‌র নেতারা মমতার সংগ্রামের ইতিহাস জানেন না। তাই তাঁর বিরুদ্ধে অপপ্রচার করছেন। বন্যার সময় দেখলাম, কেন্দ্র বিহার, অসমকে সাহায্য করল। বাংলাকে কিছুই দিল না। মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি একা মোকাবিলা করে পরিস্থিতি সামলেছেন। পার্থ এদিন বলেন, সিপিএমের কর্মীদের হাতে বিজেপি এখন পদ্মফুল ধরিয়ে দিচ্ছে। সিপিএমের বিরুদ্ধে বিজেপি–কে লড়াই করতে হয়নি। ওদের নেতাদের ত্যাগ স্বীকার করতে হয়নি। এরা শুধু এখন কুমন্তব্য করে বেড়াচ্ছেন। আগে বাংলা সম্পর্কে অমিত শাহ ভালভাবেই জানেন, বাংলাকে চিনুন। তারপর মন্তব্য করবেন।

জনপ্রিয়

মুকুলকে নিতে আগ্রহী বিজেপি

বৃহস্পতিবার ২১ সেপ্টেম্বর, ২০১৭

অসীম ঘটকের শেষকৃত্য সম্পন্ন

বুধবার ২০ সেপ্টেম্বর, ২০১৭

থিম ‘‌কন্যাশ্রী’‌ বাঁধল গঙ্গা, টেমসকে  

বুধবার ২০ সেপ্টেম্বর, ২০১৭

বৃহস্পতিবার ২৪ আগষ্ট, ২০১৭

গণেশ বন্দনায় মেতেছে বলিউড

বুধবার ২৩ আগষ্ট, ২০১৭

ফুলে ঢাকা চিলির মরুভূমি

রবিবার ৬ আগষ্ট, ২০১৭

পুতিনের মেমেতে ছয়লাপ রাশিয়া

শনিবার ৮ জুলাই, ২০১৭

বঙ্গ সংস্কৃতি, আমেরিকা

শনিবার ১ জুলাই, ২০১৭

বঙ্গ সংস্কৃতি অস্ট্রেলিয়া

Back To Top